Header Ads

সন্ত্রাসবাদের মূলোচ্ছেদ হচ্ছে না কেন ?

সন্ত্রাসবাদের মূলোচ্ছেদ হচ্ছে না কেন ?

টলি বাংলা ওয়েব ডেস্ক
আবার কাশ্মীরে ৪০-৪২ জন সৈনিকের প্রাণ গেল। সারাদেশ শোকস্তব্ধ। দলমত নির্বিশেষে আতঙ্কবাদের বিরুদ্ধে বিনিপাত ঘোষণা চলছে। দেশের শহর, নগর, মহকুমায় সংগঠিত হচ্ছে ধিক্কার মিছিল। বর্তমান শাসকদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে সবকটা বিরোধী দল। মাস দেড়েক পরে লোকসভার নির্বাচন। রাজনৈতিক দলগুলো ভোট ভিক্ষা করতে পরস্পরকে গালিগালাজ করবে। ভোটাররা জানতে চাইবে বর্তমান সরকারের কাজের খতিয়ান। কিন্তু এই মুহূর্তে সব রকম রাজনৈতিক বিরোধ ভুলে সব কটা রাজনৈতিক দল ও দেশের নাগরিকরা একতাবদ্ধ হয়ে জানতে চাইছি আর কবে সন্ত্রাসবাদের মূলোচ্ছেদ হবে ?

কেন্দ্রে কংগ্রেস ও বিজেপি সরকার করেছে। মোরারজি দেশাই, গুজরাল, দেবগৌড়া প্রমুখদের অস্থায়ী সরকারগুলোকে বাদ দিলে, বিজেপির ১১ বছর তিন মাসের সরকার বাদ দিলে, কংগ্রেসের প্রায় ৫৪ বছরের সরকার পাকিস্তান জুজুর আতঙ্কের অবসান ঘটাতে পারলাম না কেন ?

তবে কি বামপন্থীদের কথা যথার্থ - যেমনটা উৎপল দত্তের নাটকে বলা হয়েছে, 'সামনে নির্বাচন এলেই সীমান্তে বেজে ওঠে যুদ্ধের দামামা' -

বারবার গোয়েন্দা দফতরের পারদর্শিতা ফেল করে কেন ? প্রাক্তন সামরিক কর্তা ও বি.এস.এফ কর্তাদের অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন, এবারও কেন গোয়েন্দা রিপোর্টকে অস্বীকার করা হলো ?

কেন কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা আজও বলবৎ ? কেন অভিন্ন দেওয়ানি বিধি চালু হচ্ছে না ? কেন ভারতীয় সেনারা অখন্ড কাশ্মীরের দখল নিচ্ছে না ? দেশের মধ্যে সন্ত্রাসবাদ দমনে সরকার কেন ব্যর্থ ? তবে কি সর্ষের মধ্যেই ভূত ?




বামপন্থীরা বলছেন, সন্ত্রাসবাদ ও পাকিস্তান জুজুর জিকির বাঁচিয়ে রাখার মধ্যে রাজনীতি কাজ করে। ভোটের রাজনীতি। আর তাই বলি হয়ে যায় শত শত সৈনিক ও সাধারণ মানুষ।

বিশেষ প্রতিবেদন - দেবাশিষ আচার্য

(এই প্রতিবেদনের বক্তব্য লেখকের নিজস্ব। চ্যানেল এর জন্য দায়বদ্ধ নয়)


Credit
Photo : Google


( প্রিয় পাঠক / পাঠিকা , পোস্টটিতে  লাইক, মন্তব্য ও শেয়ার করুন এবং নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের পেজে লাইক করুন )

No comments

Powered by Blogger.